বিজ্ঞানীদের বিস্ময়কর আবিষ্কার এই গ্যাজেটগুলো আপনি হয়তো এর আগে দেখেননি

বর্তমান বিশ্ব প্রযুক্তির দিক থেকে এত দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে যা আমাদের কল্পনারও বাইরে। প্রতিনিয়নতই নতুন নতুন প্রযুক্তির আর গ্যাজেটের আবিষ্কার হচ্ছে। আজ মানুষ চাদে কিংবা মঙ্গল গ্রহেও পা রাখতে সক্ষম হয়েছে এই আধুনিক প্রযুক্তিগুলোর সাহায্যে। সেই দিন আর বেশি দূরে নেই যেদিন মানুষ মঙ্গল গ্রহেও বসবাস শুরু করবে।
বিজ্ঞানীদের বিস্ময়কর আবিষ্কার এই গ্যাজেটগুলো আপনি হয়তো এর আগে দেখেননি
বিজ্ঞানের এই মহান আবিষ্কারগুলোর সাহয্যে আমাদের জীবন অনেকটাই সহজ হয়ে উঠেছে। তো চলুন আজকে জেনে নিই এমন কিছু বিষ্ময়কর আবিষ্কার বা গ্যাজেটের সম্বন্ধে যেগুলো দেখে আপনি অবাক হয়ে যাবেন।

প্লাটফর্ম গেট

ভারতে যাতায়তের অন্যতম মাধ্যম হিসেবে রেলগাড়িই ব্যবহার করা হয়। কেননা এটি অনেক সস্তা এবং খুব দ্রæত যেকোন জায়গায় যাওয়া যায়। একারণে সবাই ট্রেনেই যাতায়ত করতে বেশি পছন্দ করে। কিন্তু কখনো কখনো ভীড় এত বেশি হয় যে ট্রেনে চড়ার সময় কিংবা চলতি ট্রেন থেকেও অনেক লোক মাটিতে পড়ে যায়। আপনি যদি মুম্বাইতে থাকেন বা মুম্বাইয়ের কোনো একটি ট্রেনে যাতায়ত করেছেন তো আপনি হয়তো জানেন যে সেখানকার লোকাল ট্রেনে কী পরিমাণ ভীড় হয়।

এক রিপোর্টে জানা যায় মুম্বাইয়ের এই লোকাল ট্রেনগুলোতে প্রতিবছর প্রায় তিন হাজার লোক বিভিন্ন দূর্ঘটনায় পড়ে মারা যায়। কিন্তু প্লাটফর্ম গেট নামক এই আবিষ্কারের ফলে অনেক মানুষের প্রাণ বাচানো সম্ভব। এই গিটটি তখনি খুলবে যখন ট্রেন প্লাটফর্মে এসে থামবে এবং ট্রেন যাওয়ার সাথে সাথেই এই গেটটি অটোমেটিক বন্ধ হয়ে যাবে। এটি সর্বপ্রথম জাপানে আবিষ্কৃত হয়। আর জাপানের প্রত্যেকটি রেলওয়ে স্টেশনেই এই গেটটি লাগানো আছে। বন্ধুরা, এই ধরণের গেট কী ভারতের স্টেশনগুলোতেও লাগানো উচিত? আপনাদের মতামত কমেন্ট করে জানাবেন।

নোকিয়া ফিট

মোবাইল ও কম্পিউটার বিজ্ঞানের এমন দুইটি আবিষ্কার যেগুলোর সাইজ প্রতিনিয়তই পাল্টে যাচ্ছে। আগে একটি কম্পিউটার রাখার জন্য পুরো একটি ঘরের প্রয়োজন হতো। কিন্তু ধীরে ধীরে এটার সাইজ এতো ছোট হয়েছে যে আস্ত একটি কম্পিউটার আপনি হাতে করে নিয়ে ঘুরতে পারবেন। মোবাইল ফোনের বেলাও ঠিক এমনটিই হয়েছে। মোবাইল ফোনগুলোর সাইজ দিন দিন ছোট হয়েই যাচ্ছে। এখনকার মোবাইলফোন গুলোতে প্রতিনিয়তই নতুন নতুন ফিচার যুক্ত হচ্ছে।

তেমনই মোবাইল ফোন নির্মাতা কোম্পানি নোকিয়া এমন একটি ফোন আবিষ্কার করেছে যেটি আপনি আপনার আঙ্গুলে লাগিয়ে ব্যবহার করতে পারবেন। এটি দিয়ে আপনি কল রিসিভ করতে এবং কাউকে কল দিতেও পারবেন। এমনকি এটি দিয়ে আপনি যেকাউকে মেসেজও পাঠাতে পারবেন। এই ডিভাইসটির মূল্য মাত্র ৮০০০ টাকা। বন্ধুরা আপনারা কোন ফোনটি বর্তমানে ব্যবহার করছেন সেটি আমাকে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবনে।

নেকিট প্রস্টেটিক্স

নেকিট প্রস্টেটিক্স নামক একটি কোম্পানি বিষ্ময়কর একটি ডিভাইসের আবিষ্কার করেছে। কারখানাতে কাজ করার সময় অনেকেরই দূর্ঘটনাবশত আঙ্গুল কেটে যায়। যার ফলে পড়ে যেকোন কাজ করা কষ্টদায়ক বা অসম্ভব হয়ে পড়ে। কিন্তু নেকিট প্রস্টেটিক্স নামক এই ডিভাইসটি সেইসব মানুষের হয়ে একটি আশির্বাদ স্বরুপ। একটি ডিভাইসটির সাহায্যে আপনি দৈনন্দিন যেকোন ধরণের কাজ খুব সহজেই করতে পারবেন।

এই ডিভাইসটির সাহায্যে আগের মতোই জীবন যাপন করতে পারবেন। এটির সাহায্যে আপনি গাড়ি চালাতে পারবেন খাবার তৈরি করতে পারবেন এমনকি সবজিও কাটতে পারবেন। এককথায় একজন সাধারণ মানুষের মতো সবকিছুই করতে পারবেন এই ডিভাইসটি দিয়ে।

সুইন্ড কার

সুইন্ড কার একটি মিনি কার যেটি দিয়ে সোজা-বাকা, ভাঙ্গা-চোড়া, উচুনিচু বা জঙ্গলি রাস্তাও খুব সহজেই চালানো যায়। হালকা হওয়ার কারণে এটিকে নিয়ন্ত্রণ করাও অনেক সহজ। এই মিনি কারটি জুলাই ২০১৭ সালে তৈরি করা হয়। তখন থেকেই প্রস্তুতকারী কোম্পানিটি এটির অনেকগুলো মডেল বাজারে বিক্রি করেন।

ইদানিং এই মিনি কারটি সবার পছন্দের হয়ে উঠছে। যাদের অ্যাডভেঞ্জারের শখ রয়েছে তাদের এই মিনি কারটি অবশ্যই কেনা উচিত।

Post a Comment

0 Comments