পঙ্গপাল: ২৩ দেশে হানা দিয়েছে, জুনের মধ্যে ৪০০ গুণ বড় হতে পারে!





অনলাইন ডেস্ক: ঝাঁকবদ্ধ পতঙ্গ পঙ্গপালের তীব্র আক্রমণে বিপাকে পড়েছে বহু দেশ। ফসলখেকো পোকা পঙ্গপালের হানায় বিপর্যস্ত কেনিয়া, ইথিওপিয়া ও সোমালিয়াসহ আফ্রিকার ১৪টি দেশ। এ প্রজাতির পোকা মধ্যপ্রাচ্য ও পশ্চিম এশিয়ার ৩০টি দেশে এরইমধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে ভারত-পাকিস্তানেও।

সর্বশেষ বাংলাদেশেও পঙ্গপালের আক্রমণ হতে পারে, এমন আশংকার কথা বলছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। পঙ্গপাল সংকটের কারণে ১০ দেশের কয়েক লাখ মানুষকে মারাত্মক ঝুঁকিতে ফেলে দিতে যাচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা এমন দাবিই করেছেন বলে গার্ডিয়ানে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

পঙ্গপালেরা একদিনেই সাবাড় করে দিতে পারে ৩৫ হাজার মানুষের প্রয়োজনীয় খাবার। মুহূর্তেই ধ্বংস করে ফেলতে পারে বিস্তীর্ণ ফসলি জমি। পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলে ফসলি জমির ওপর হানা দিয়েছে পঙ্গপালের ঝাঁক। এরইমধ্যে গুজরাটসহ ভারতের প্রায় ৪ লাখ হেক্টর ফসলি জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।


ইথিওপিয়া সরকারের এক হিসাবে বলা হয়, সম্প্রতি দেশটিতে পঙ্গপাল হানা দিয়ে ৩ লাখ ৫৬ হাজার মেট্রিক টন শস্য নষ্ট করেছে, ২ লাখ হেক্টর কৃষিজমি নষ্ট করেছে। এর ফলে দেশটির ১০ লাখেরও বেশি লোকের খাদ্য সহায়তার প্রয়োজন। 

জাতিসংঘ বলছে, বছর দুয়েক আগে আরব উপদ্বীপের দক্ষিণাঞ্চলের আর্দ্র আবহাওয়ার কারণে পঙ্গপালের তিনটি প্রজন্মের বংশবৃদ্ধি নজরদারির মধ্যে রাখা সম্ভব হয়নি। ২০১৯ সালের শুরুর দিকে ইয়েমেন, সৌদি আরব ও ইরানে ঝাঁকে ঝাঁকে পঙ্গপাল যায়। সেখান থেকে বংশবৃদ্ধি করে পূর্ব আফ্রিকার দিকে যায় তারা। গত বছরের শেষদিকে এরিত্রিয়া, জিবুতি ও কেনিয়ায় দেখা যায় এই পতঙ্গ। বর্তমানে ওই অঞ্চলে আবারও দেখা দিয়েছে। মিশর, সুদান, সৌদি আরব, ইয়েমেন এবং ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে পঙ্গপালের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় পরিস্থিতিকে ‘অত্যন্ত আশঙ্কাজনক’ বলে অভিহিত করেছে জাতিসংঘ।



করোনাভাইরাস পৃথিবীর সব মানুষকে আতঙ্কিত করছে। মৃত্যুভীতি ছাড়াও অর্থনৈতিকভাবে করোনা বিশ্বকে কাবু করেছে। মহামারি এই ভাইরাস ছাড়াও বৈশ্বিক ঝুঁকি হিসেবে ধরা দিয়েছে পঙ্গপালও। কোনোভাবে থামানো যাচ্ছে না তাদের হানা। উত্তর আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্যসহ পশ্চিম এশিয়ার দেশগুলোতে বাড়ছে এর প্রকোপ। ফলে খাদ্য সংকটে পড়বে পুরো বিশ্ব। এজন্য জলবায়ুর অস্বাভাবিকতাকে দায়ী করছেন অনেকে।



জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) জানিয়েছে, সীমান্ত ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ করায় পঙ্গপাল নিয়ন্ত্রণের কীটনাশকসহ প্রয়োজনীয় সরজ্ঞাম সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। বিশ্লেষকরা আশঙ্কা করছেন, করোনা ভাইরাস আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমস্ত মনোযোগ পঙ্গপাল নিয়ন্ত্রণে বিমুখ করছে।


প্রতি স্কয়ার কিলোমিটার পঙ্গপালের ঝাঁকে থাকে ৪ থেকে ৮ কোটি পোকা। জাতিসংঘের আশঙ্কা, আগামী জুনে এর বিস্তার অন্তত ৫০০ গুণ বৃদ্ধি পাবে। যেটি পৃথিবীজুড়ে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় ডেকে আনবে।


Post a Comment

0 Comments